আই ল্যাশ গজানো ও বৃদ্ধির জন্য কিছু প্রাকৃতিক উপায়’

0
Loading...

আমাদের মাথার চুলের মতই আই ল্যাশও একটি নির্দিষ্ট নিয়মে ও হারে বেড়ে থাকে। মাশকারা, কাজল, আই লাইনার ইত্যাদি ব্যবহারের কারণে আই ল্যাশ পড়ে যেতে থাকলে, তা পুনরায় গজানোর অপেক্ষা করা ছাড়া আর কিছুই করার থাকেনা । আমাদের আই ল্যাশ এর দৈর্ঘ্য ও স্বাস্থ্য যদিও জেনেটিক্স দ্বারা নির্ধারিত হয়ে থাকে, তবুও আই ল্যাশ গজানো ও বৃদ্ধির জন্য আছে কিছু প্রাকৃতিক উপায় ।

ভিটামিন এইচ ( বায়োটিন )

ভিটামিন এইচ ( বায়োটিন ) চুল কে স্ত্রেইট রাখতে ও চুলের দ্রুত বৃদ্ধিতে সাহায্য করে । ভিটামিন এইচ একটি বি-কমপ্লেক্স ভিটামিন যা অনেক কস্‌মেটিক্স প্রোডাক্ট ও খাদ্যেও পাওয়া যায় । পানিতে দ্রবণীয় এই ভিটামিন টি বাদাম, কলা , ডিমের কুসুমে পাওয়া যায় । ডিমের সাদা অংশে থাকে এভিডিন নামক প্রোটিন, যা ভিটামিন এইচ শোষণে সাহায্য করে ।

অ্যান্‌টিঅক্সিড্যান্‌ট

দুটি অ্যান্‌টিঅক্সিড্যান্‌ট ভিটামিন, ভিটামিন ‘সি’ ও ‘ই’ স্বাভাবিক হেয়ার গ্রোথ এর জন্য অনেক প্রয়োজনীয় । ভিটামিন সি এর অভাবে চুল রুক্ষ হয়ে যায় ও চুলের আগা ফেটে যায় । এছাড়াও ভিটামিন সি, ফ্রি র‍্যাডিকেল এর আক্রমণ থেকে চুল কে রক্ষা করে । ভিটামিন ই স্কাল্প সার্কুলেশন বাড়ায় । সবুজ শাক সবজিতে এই ভিটামিন গুলো থেকে থাকে ।

অলিভ অয়েল/ ক্যাস্টর অয়েল

ঘন ও দীর্ঘ ল্যাশ পেতে ,প্রতি রাতে অল্প পরিমাণে অলিভ / ক্যাস্টর অয়েল আই ল্যাশ এর গোঁড়ায় লাগিয়ে রাখুন । ১ অথবা ২ মাসের মধ্যেই নতুন আই ল্যাশ গজাতে আরম্ভ করবে । এছাড়াও অলিভ অয়েল আপনার আই ল্যাশ এর জন্য কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করবে ।

ভ্যাসলিন

অলিভ অয়েল/ ক্যাস্টর অয়েল এর বদলে প্রতি রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে আই ল্যাশ এর গোঁড়ায় ভ্যাসলিন লাগিয়ে নিতে পারেন । সারারাত এভাবে রাখতে পারেন অথবা আপনি চাইলে ১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলতে পারেন । কিছু সপ্তাহের মধ্যেই ফল পাবেন ।

ডায়েট

প্রোটিন ও ভিটামিন সমৃদ্ধ খাবার আই ল্যাশ এর বৃদ্ধির জন্য অত্যাবশ্যকীয় । মাছ , ডিম , বিন ইত্যাদি আই ল্যাশ এর বৃদ্ধিকে সহায়ক।

‘ কিছু ঘরোয়া পদ্ধতিতে চোখের যত্ন ‘

১) টি-ব্যাগঃ
একটি বাটিতে ঠাণ্ডা পানি নিয়ে , তাতে কয়েক মিনিটের জন্য টি ব্যাগ ভিজিয়ে নিন ।এবার টি ব্যাগটি আপনার চোখের
উপর দিয়ে রাখুন এবং উষ্ণ না হওয়া পর্যন্ত রিল্যাক্স করুন । এটি আপনার চোখে সতেজ ভাব আনবে ।

২) আমন্ড অয়েলঃ
রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে  চোখের চারিদিকে ধীরে ধীরে  আমন্ড অয়েল ম্যাসাজ করুন । সকালে স্কিনের সফ্টনেস নিজেই উপলব্ধি করতে পারবেন ।

৩) গোলাপ জল
আপনার সাথে সবসময় গোলাপ জলের স্প্রে রাখতে পারেন। চেহারার  ক্লান্তি ভাব কাটাতে আপনার মুখে গোলাপ জল
স্প্রে করতে পারেন । ক্লান্তি ভাব অনেকটাই কমে যাবে অথবা, গোলাপ জলে তুলো ভিজিয়ে আপনার চোখের চারপাশে অ্যাপ্লাই করতে পারেন ।

৪) আমলাঃ
আমলা তে থাকে ভিটামিন সি , যা চোখের জন্য উপকারী । আপনার খাদ্য তালিকায় আমলা অন্তর্ভুক্ত করুন অথবা পানিতে আমলা ভিজিয়ে রেখে ঐ  পানি চোখ  ক্লিনসিং এ  ব্যবহার করতে পারেন ।

প্রতিদিনের করনীয় কিছু টিপসঃ

১) পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমান ।

২) ভিটামিন ‘ এ ‘ ও ‘ সি ‘ যুক্ত খাবার ( যেমন গাজর , পেঁপে , আমন্ড , মাছ ইত্যাদি ) প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় রাখুন।

৩) বেশি বেশি পানি পান করুন ।

৪) চোখ কখনও আঙ্গুল দিয়ে ঘষবেন বা চুলকাবেন না । এক্ষেত্রে পাতলা, নরম কাপড় ব্যবহার করতে পারেন।

৫) আমাদের চোখ এবং চোখের চারপাশের স্কিন অনেক ডেলিকেট , তাই সবসময় ভালো ভাবে জেনে ও সতর্কতার সাথে চোখের জন্য প্রোডাক্ট বাছাই করুন ।

৬)  চোখে মেকাপ লাগানো অবস্থায় কখনও ঘুমাবেন না । চোখে ইনফেকশন হতে পারে ।

৭) একাধারে অনেকক্ষণ ধরে কম্পিউটার স্ক্রিন এর সামনে থাকা চোখের জন্য ক্ষতিকর । তারপরও যাদের কে থাকতে হয়, তারা আই স্পেশালিষ্ট এর পরামর্শ নিয়ে আই ড্রপ সাথে রাখতে পারেন যাতে পরবর্তীতে চোখ শুকিয়ে যাওয়া, চোখে লালচে ভাব আসা , চোখে চুলকানি হওয়ার মত সমস্যা না হয়।

বিঃ দ্রঃ প্রতিদিন মজার মজার রান্নাকরার অসাধারন সব রেসিপি এবং রুপ লাবণ্য টিপস আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে আমাদের দুটি পেজ লাইক দিন!

রান্নাকরার অসাধারন সব রেসিপি

মজার রেসিপি/ রুপ লাবণ্য

Share.
[X]