ওয়াইফাইয়ের দিন শেষ, এবার হেব্বি স্প্রিড নিয়ে আসছে ‘লাইফাই’

0
Loading...

গুগল কিংবা ইউটিউব থেকে পছন্দের ভিডিওটি ডাউনলোড করছেন? কিন্তু স্প্রিড পাচ্ছেন না তো? কি ভাবছেন, এবার ফোর-জি, ফাইফ-জি কিংবা সিক্স-জি কিনবেন তাই না? মাথা থেকে এসব কেনার চিন্তা তাহলে এখনই বাদ দিন। কারণ ওয়াইফাইকে পেছনে ফেলতে নতুন করে আসছে আলো বা লাইট নির্ভর মাধ্যম লাইফাই। ‘লাইফাই’ শব্দটি প্রথম প্রযুক্তি পরিবারে নিয়ে আসেন এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হারাল্ড হাস।

কল্পনাকে হার মানিয়ে এলইডি লাইটের মাধ্যমে কাজ করা লাইফাই এনে দেবে দ্রুত গতির ইন্টারনেট সুবিধা। বিশেষ করে বাড়ি কিংবা অফিসের মতো জায়গায় ওয়াইফাইয়ের চমৎকার বিকল্প হিসেবে কাজ করবে এই মাধ্যম। বলতে পারেন ওয়াই-ফাইয়ের সুপার-ফাস্ট বিকল্প হচ্ছে লাইফাই। এটা শুধু পরিকল্পনাতেই সীমাবদ্ধ নয়, ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষিত, হাতেনাতে প্রমাণিত। লাই-ফাই সিস্টেমে ডেটা এতটাই জোরে ছোটে একটা পূর্ণদৈর্ঘ্যের সিনেমা ডাউনলোড হয়ে যায় সেকেন্ডে। স্পিড ১ জিবি পিএস।

হিসাব কষলে দেখা যাবে, বর্তমান ওয়াই-ফাই প্রযুক্তির থেকে ১০০ গুণ দ্রুততর। এই প্রযুক্তির নেপথ্যে যিনি, তিনি অধ্যাপক হ্যারল্ড হাস। এই লাই-ফাই দুনিয়ার সঙ্গে পরিচয় ঘটিয়েছেন তিনিই, এটা তারই আবিষ্কার। কী এই লাই-ফাই? এক কথায় বললে, বিশেষ ধরনের একটি আলো। যার থেকে নির্গত রশ্মির মধ্য দিয়েই তথ্য যায় বাতাসে ভর করে। ফাইবার অপটিক নেটওয়ার্কে এই আলোকে কাজে লাগিয়েই ডেটা পাঠানো হয়ে থাকে।

এডিনবর্গ ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক হ্যারল্ড হস ২০১১ সালেই এই প্রযুক্তি আবিষ্কার করেন। দেখান, কী ভাবে সিঙ্গল লেডের মাধ্যমে সেলুলার টাওয়ারের থেকে বেশি ডেটা দ্রুত পাঠানো যায়। এতদিন পরীক্ষামূলক ভাবে এয়ারলাইন্সে এই প্রযুক্তি কাজে লাগানো হচ্ছিল। ইন-ফ্লাইট যোগাযোগ রাখা হচ্ছিল লাই-ফাইকে কাজে লাগিয়ে। এমনকী গোয়েন্দারাও তা ব্যবহার করেছেন।

বিঃ দ্রঃ প্রতিদিন মজার মজার রান্নাকরার অসাধারন সব রেসিপি এবং রুপ লাবণ্য টিপস আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে আমাদের দুটি পেজ লাইক দিন!

রান্নাকরার অসাধারন সব রেসিপি

মজার রেসিপি/ রুপ লাবণ্য

Share.
[X]